আবরার হত্যা: যে কারণে পেছাল মামলার রায়

0

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যা মামলার আজ রোববার রায় ঘোষণা করার কথা থাকলেও তা হয়নি। তা পিছিয়ে চলতি বছরের ৮ ডিসেম্বর ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার (২৮ নভেম্বর) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান রায়ের নতুন এ তারিখ ঘোষণা করেন।

এদিন কারাগারে থাকা ২২ আসামিকে সকাল ৯টার দিকে আদালতে আনা হয়। এ সময় তাদেরকে মহানগর দায়রা জজ আদালতের নিচতলায় কোর্ট হাজতে রাখা হয়।

দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আসামিদের এজলাসে তোলা হয়। দুপুর ১২টা ৫ মিনিটের দিকে জনাকীর্ণ এজলাসকক্ষে আসন গ্রহণ করেন বিচারক।

রায় পেছানোর ঘোষণা দিয়ে বিচারক বলেন, সাক্ষ্য ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক পর্যালোচনা করে রায় ঘোষণার জন্য আরও কিছু সময় প্রয়োজন। তাই আজ রায় ঘোষণা করা হলো না। রায় ঘোষণার হবে চলতি বছরের ৮ ডিসেম্বর।

এই কথা বলে বিচারক আসন ত্যাগ করে খাস কামরায় চলে যান।

২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে পরের দিন ৭ অক্টোবর চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ। মাত্র ৩৭ দিনে তদন্ত শেষ করে একই বছরের ১৩ নভেম্বর চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক মো. ওয়াহিদুজ্জামান। চার্জশিটে ২৫জনকে আসামি করা হয়। আর রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষী করা হয়, ৬০ জনকে।

চার্জশিট দাখিলের পর ২০২০ সালের ১৫ মার্চ মামলা‌টি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে-১ স্থানান্ত‌রের আদেশ দিয়ে গেজেট প্রকাশ করে আইন মন্ত্রণালয়।

একই বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর মামলাটি চার্জগঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান।

জয়নিউজ/পিডি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...