বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়া ওতপ্রোতভাবে যুক্ত: তথ্যমন্ত্রী

0

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, জিয়াউর রহমান ছিলেন কার্যতপক্ষে একজন খুনি ও বিশ্বাসঘাতক। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তিনি ওতপ্রোতভাবে যুক্ত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির নেতারা ক্রমাগতভাবে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকাকে অস্বীকার করে আসছেন। তাঁরা একজন খলনায়ককে নায়ক বানানোর অপচেষ্টা চালান। জিয়াউর রহমান ছিলেন কার্যতপক্ষে একজন খুনি ও বিশ্বাসঘাতক। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তিনি ওতপ্রোতভাবে যুক্ত ছিলেন। এই খুনির দলের রাজনীতি যাঁরা করেন, তাঁরা বঙ্গবন্ধুর ভূমিকাকে অস্বীকার করেন।’

শনিবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে চট্টগ্রাম থিয়েটার ইনস্টিটিউট হলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম।

বিএনপি নেতাদের খুনি এবং বিশ্বাসঘাতকের রাজনীতি ছাড়ার অনুরোধ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির সামনে জিয়াউর রহমানের মুখোশ উন্মোচন করা হবে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, বাংলাদেশে যদি সুষ্ঠু রাজনৈতিক ধারা চালু করতে হয়, ইতিহাস ও রাজনীতিকে কলুষমুক্ত করতে হয়, তাহলে যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতি করা নিষিদ্ধ হওয়া প্রয়োজন।

একইসঙ্গে যারা বঙ্গবন্ধুর ভূমিকাকে খাটো করে দেখে এবং বঙ্গবন্ধুকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা চালায়, তাদের রাজনীতিও এ দেশে বন্ধ হওয়া প্রয়োজন। একজন খুনি এবং বিশ্বাসঘাতকের পক্ষে যাঁরা রাজনীতি করেন, তাঁদের রাজনীতি করার অধিকার থাকা উচিত নয়।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে, সেই বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকাকে অস্বীকার করা হয়, এটি পৃথিবীর কোনো দেশে নাই।’

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘ভারতে মহাত্মা গান্ধী, পাকিস্তানে কায়েদে আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ এবং যুক্তরাষ্ট্রে জর্জ ওয়াশিংটনের ভূমিকাকে খাটো করে কেউ কি রাজনীতি করতে পারবে, পারবে না। কিন্তু আমাদের দেশে পারে।’

বঙ্গবন্ধু বহু আগেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরিকল্পনা করেছিলেন উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু জানতেন কখন কোন কথাটি বলতে হয়। তিনি পরিকল্পনা করেছিলেন, প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন কিন্তু তিনি সেটি প্রকাশ করেননি। বঙ্গবন্ধু স্বাধিকার আদায়ের আন্দোলনের মাধ্যমে ১৯৬৬ সালে ছয় দফা ঘোষণা করলেন। ছয় দফার ভিত্তিতে জনমত গঠন করলেন।

জনমত গঠন করে মানুষের মনন তৈরি করে তিনি নির্বাচনে গেলেন। নির্বাচনে গিয়ে তিনি প্রমাণ করলেন, বাংলার মানুষ তাঁর ছয় দফার পক্ষে আছে। এরপর ধীরে ধীরে বাঙালিকে আরও উদ্বেলিত করে ৭ মার্চ স্বাধীনতার ডাক দেন।’

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...