পথচারীকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল ১০ জনের

0

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ এলাকায় এক পথচারীকে বাঁচাতে গিয়ে রাস্তার ওপরে উল্টে যায় বাস। এসময় দ্রুতগতিতে আসা একটি ট্রাক বাসটির মাঝ বরাবর ধাক্কা দেয়। এতেই বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে ১০ যাত্রী নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বেলা ৩টার দিকে যশোর-ঝিনাইদহ মহাসড়কে উপজেলার বারবাজার তেলপাম্পের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩০ থেকে ৩৫ জন। তাদের মধ্যে সাত থেকে আটজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

জানা যায়, উদ্ধার শেষে আহতদের কালীগঞ্জ ও যশোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ছয়জন পুরুষ, দুইজন নারী ও একজন শিশু রয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের পরিচয় জানা যায়নি।

দুর্ঘটনার পর পরই বারবাজার হাইওয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও খবর পেয়ে স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনার উপস্থিত হয়ে উদ্ধার কাজে অংশ নেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার জেকে পরিবহনের একটি বাসযাত্রী বাস নিয়ে কুষ্টিয়ার দিকে যাচ্ছিল। বাসটি বারোবাজার পার হয়ে আমজাদ আলী ফিলিং স্টেশনের সামনে পৌঁছালে রাস্তার ওপর থাকা যাত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে ব্রেক করে। এতে বাসটি উল্টে রাস্তার ওপরে পড়ে যায়। এসময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক বাসের মাঝামাঝি সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার ওপর আড়াআড়ি হয়ে উল্টে পড়ে এবং ঘটনাস্থলেই ১০ জন প্রাণ হারান।

কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন অফিসার শেখ মামুনুর রশিদ জানান, বেলা ৩টার দিকে জেকে পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব- ১১-০২১০) যাত্রীবাহী বাসটি যশোর থেকে কুষ্টিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। পথে কালীগঞ্জ উপজেলার বারবাজার তেল পাম্পের কাছে পৌঁছে একটি বাসকে ওভারটেক করতে যাচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ তার সামনের দিক থেকে আসা একটি ট্রাককে সাইড দিতে গিয়ে ধাক্কা লাগে।

তিনি জানান, এতে দ্রুতগামী জেকে পরিবহন নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার উপরেই পড়ে উল্টে যায়। বাসের মধ্যে থাকা আহত যাত্রীদের চিৎকারে প্রথমে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে উদ্ধার কাজ শুরু করেন। এর পরপরই খবর পেয়ে বারবাজার হাইওয়ে পুলিশ ও কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উপস্থিত হয়ে উদ্ধার কাজে অংশ নেন।

মামুনুর রশিদ জানান, খবর পেয়ে স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনার দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিজেও উদ্ধার কাজে নেমে পড়েন। তারা একে একে ১০টি মৃতদেহ উদ্ধার এবং গুরুতর আহত অবস্থায় ২৫ থেকে ৩০ জনকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ ও যশোর সদর হাসপাতালে পাঠান। এ সময় প্রায় ঘন্টাব্যাপী সড়কে চলাচল বন্ধ ছিল।

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...