স্বাস্থ্যখাতে দীনতা দূর করতে হবে: মেয়র নাছির

0

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, অদৃশ্য শত্রু মরণঘাতী করোনাভাইরাস এমনই একটি মারণাস্ত্র যার জীবন বিধ্বংসী নাশকতার চরিত্র-প্রকৃতি কারো জানা ছিল না। তাই এ রোগের সংক্রমণ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আমাদের স্বাস্থ্যখাতের দীনতাগুলো সুস্পষ্ট হয়ে উঠে। করোনাকালের এই শিক্ষা নিয়ে স্বাস্থ্যখাতে দীনতা দূর করতে হবে।

মঙ্গলবার ( ২৩ জুন) মোহরায় ছাফা মোতালেব মাতৃসদন হাসপাতালের কার্যক্রম সরেজমিনে পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় সামর্থ্য ও সক্ষমতা নিয়ে নানান প্রশ্ন উঠলেও সরকার নির্বিকার ও নির্লিপ্ত নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিজেই মনিটরিং করছেন এবং ব্যবস্থাপনার ত্রুটিগত দীনতাগুলো দ্রুত নিরসন করে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য যুদ্ধকালীন অবস্থার মতোই স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থাপনাকে ঢেলে সাজাতে সবধরণের উদ্যোগ ও প্রস্তুতি অব্যাহত রেখেছেন। সরকারি ও বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রে যেসব চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আক্রান্তদের সেবা দিচ্ছেন তার ধারাবাহিকতায় অবশ্যই পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সম্ভব।

সাফা মোতালেব হাসপাতাল পরিদর্শন করছেন সিটি মেয়র

তিনি চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, তারা অবশ্যই দেশপ্রেমিক। আমরা ইতোমধ্যেই অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীকে হারিয়েছি। তাঁরা বীরের মর্যাদায় অভিসিক্ত। পাশাপাশি এটাও লক্ষ্যণীয় যে, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের একটি অংশ তাদের পেশাগত দায়িত্ব ভুলে গিয়ে করোনা ভীতিতে আক্রান্ত হয়ে নিজেকে গুটিয়ে রেখে দেশপ্রেম বিবর্জিত আচরণে লিপ্ত হয়েছেন। এমনকি সরকারি-বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্র নির্বিশেষে কোনো কোনো হাসপাতালের অব্যবস্থপনার চিত্র সহ্যের সীমা অতিক্রম করেছে।

মেয়র দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত নগরবাসীর চিকিৎসা সেবায় চিকিৎসকদের শতভাগ অবদান রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এ মানবিক দায়িত্বটুকু পালনে চিকিৎসক-নার্সদের অবশ্যই সচেষ্ট হতে হবে। যারা এ ক্ষেত্রে অবহেলা করবেন তারা ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে অপরাধী হয়ে থাকবেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চসিক কাউন্সিলর মো. আজম, সাফা মোতালেব মাতৃসদন হাসপাতালের ইনচার্জ ডা. মো. তৌহিদুল আনোয়ার খান, ডা. কাউছার পারভীন, ডা. আলমগীর, ডা. জোৎস্না রানী বড়ুয়া, ডা. রিয়াজ আহমদ, ডা. রনজিত পাল, ডা. কুসুম আক্তার, ডা. তানজিনা খাতুন, ডা. সামিয়া আফরিন, ডা. ওয়াহিদা বেগম, আওয়ামী লীগ নেতা নাজিম উদ্দীন চৌধুরী, আনোয়ার মিজ্জা, মো. ফারুক, রুবায়েত হোসেন, নঈম উদ্দিন, খান ও আবুল কালাম।

পরে নগরে জালালাবাদ ও উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে থিয়েটার ইনস্টিটিউটে এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এই কর্মশালায় সিটি মেয়র স্বেচ্ছাসেককদের উদ্দেশে বলেন, এ কর্মশালার প্রশিক্ষকদের নির্দেশনা মেনে নিয়ে দুর্যোগকালীন পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিবেদিত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনাদের এ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের জন্য আপনারা অবশ্যই স্বীকৃতিযোগ্য। ভবিষ্যতে সব সংকট মোকাবেলায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে আপনারা অগ্রাধিকার পাবেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বী, মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাশেম, কর্মশালার আইইডিসিআরের প্রশিক্ষক ডা. মো. ওমর কাইয়ুম ও ডা. তৌহিদুল আনোয়ার খান।

জয়নিউজ/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...