চট্টগ্রামে ৭ দিনেও মিলছে না করোনার রিপোর্ট

0

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় মারাত্মক জটের সৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে। পাশাপাশি নমুনা পরীক্ষাতেও দেখা দিয়েছে ধীরগতি। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে মানুষ। নমুনা দেয়ার ৭ দিনের মধ্যেও পরীক্ষার ফলাফল মিলছে না বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

চট্টগ্রামে করোনা পরীক্ষার দুটি পরীক্ষাগারে এখন পর্যন্ত ৫ হাজারেরও বেশি নমুনা পরীক্ষার অপেক্ষায় রয়েছে। প্রয়োজনের তুলনায় ল্যাব কম হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি।

এছাড়া চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে করোনা উপসর্গের রোগীদের নমুনা সংগ্রহে কোনোরকম দূরত্ব না রেখেই হুড়োহুড়ি করে কাজ করা হচ্ছে। যাদের ভাগ্য সহায় হচ্ছে, তারাই নমুনা দিতে পারছেন। বাকিদের ফিরতে হচ্ছে হতাশ হয়ে।

তবে নমুনা দিতে পারলেই যে ভোগান্তি থেকে রেহাই মিলছে তা কিন্তু নয়। এবার অপেক্ষার পালা রিপোর্টের জন্য। চট্টগ্রামে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে সময় লাগছে ৭-৮ দিন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তার চেয়েও বেশি সময় লাগছে।

স্বাচিপ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আ ন ম মিনহাজুর রহমান বলেন, আমরা যে চিত্রটা পাচ্ছি সেটি কমপক্ষে এক সপ্তাহ আগের। সে কারণে আজকের দিনের কি অবস্থা, সেটা বুঝে উঠতে পারছি না। ফলে রোগীর সংখ্যাও বেড়ে যাচ্ছে। যে রোগীগুলো ভর্তি আছে তাদের ঠিকমতো ছাড়পত্রও দেয়া যাচ্ছে না।

এর আগে মে’র শেষ সপ্তাহে ল্যাব প্রধানসহ ৫ জন টেকনেশিয়ান আক্রান্ত হওয়ায় ৬ দিন বন্ধ রাখতে হয় বিআইটিআইডি পরীক্ষাগার। এর ফলে কয়েক হাজার নমুনা আটকে আছে। সৃষ্টি হওয়া জট কাটাতে ৩ হাজার নমুনা পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিভিল সার্জন কার্যালয়।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, আমাদের এখানে নমুনা সংগ্রহের হার অত্যন্ত বেশি, সেই অনুসারে আমাদের পরীক্ষার সুযোগ কম। ঢাকায় যোগাযোগ করা হয়েছে, সেখানে ৩ হাজার নমুনা পাঠানো হবে।

এদিকে করোনা পরীক্ষার ফলাফল পেতে ধীর গতির কারণে আক্রান্ত রোগী আরও বেশি মানুষকে সংক্রমিত করছে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

চট্টগ্রামের বিএমএ সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মুয়াজ্জুল আকবর চৌধুরী বলেন, যথা সময়ে রিপোর্ট পাওয়া না গেলে করোনা আক্রান্ত রোগীকে দ্রুত মার্ক করা যায় না। ফলে চিকিৎসাও শুরু করা যায় না। এর ফলে অধিক মানুষ সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকে।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামে গত ২৬ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা চলছে। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, এখানকার ল্যাবগুলোতে প্রায় ৩৫ হাজার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। যেখানে চার হাজারের বেশি পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে।

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...