উদ্বোধনের অপেক্ষায় ২০ দিনে তৈরি করোনা হাসপাতাল

0

চীনের উহানে মাত্র ১০ দিনে তৈরি হয়েছিল করোনা চিকিৎসার হাসপাতাল। ওই সময়ে না হলেও বাংলাদেশে এই প্রথম মাত্র ২০ দিনেই তৈরি হয়েছে করোনা চিকিৎসায় চট্টগ্রাম ফ্লিড হাসপাতাল (সিএফএইচ)।

চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে অবস্থিত হাসপাতালটির উদ্যোক্তা প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়ুয়ার ছোট ভাই আমেরিকান ইউনিভার্সিটির সহকারী অধ্যাপক ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া।

চট্টগ্রামে করোনা চিকিৎসায় হাসপাতাল অপ্রতুল, এই ভাবনা থেকে প্রথমে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক সহসভাপতি (ভিপি) ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া। তার আহ্বানে সাড়া দিয়েছে নাভানা গ্রুপ।

ফৌজদারহাটে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান নাভানা গ্রুপের অটোমোবাইল কারখানার অভ্যন্তরে ছয় হাজার ৮০০ বর্গফুট জায়গায় নিমার্ণ হয়েছে হাসপাতালটি। মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) করোনা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালটির উদ্বোধন হবে। আপাতত পাঁচটি আইসিইউ সুবিধাসহ ৩৭ শয্যা নিয়ে শুরু হবে হাসপাতালটির সেবা দান প্রক্রিয়া।

তবে পর্যায়ক্রমে এর চিকিৎসা কার্যক্রম আরো বাড়বে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের উদ্যোক্তা ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া।

হাসপাতাল নির্মাণসহ এর চিকিৎসা ব্যবস্থার অর্থায়নে ছিল উদ্যোক্তা নিজেই, সঙ্গে নাভানা গ্রুপ আর সাধারণ মানুষের বিকাশ কিংবা সরাসরি পাঠানো আর্থিক সহায়তাও ছিল।

ডা. বিদ্যুৎ বড়ুয়া বলেন, আগামীকাল প্রথম যে রোগী আসবে তাকে চিকিৎসা দেওয়ার মাধ্যমেই শুরু হবে আমাদের কার্যক্রম। তবে থাকবে না কোনো আনুষ্ঠানিকতা। আপাতত ৩৭ সাধারণ শয্যা দিয়ে হাসপাতালটির সেবা শুরু করা হবে। সপ্তাহখানেকের মধ্যে পাঁচটি আইসিইউ সেবা চালু হবে। মোট দশটি আইসিইউ বেড করার প্ল্যান আছে।

চিকিৎসাসেবার পাশাপাশি এ হাসপাতাল অ্যাম্বুলেন্স ও মাইক্রোবাসের মাধ্যমে রোগীদের যাতায়াত নিশ্চিত করা হবে বলে জানান ডা. বড়ুয়া।

কতজন চিকিৎসক ও নার্স এগিয়ে এসেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত ১০ জন ডাক্তার ও ৪ জন নার্স আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। এছাড়া ৭৫৬ জন স্বেচ্ছাসেবক কাজ করতে আবেদন করেছেন। এদের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই করে ৭০জনকে নিয়েছি। তার মধ্যে ৪০ জন কাজ করবে, বাকি ৩০ জন ব্যাকআপ থাকবে।

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...