নগর ছাত্রদলে ছাত্র নেই, আছেন আঙ্কেলরা

0

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ছিল ১ জানুয়ারি । বরাবরের মতো কেন্দ্রের নিধারিত কর্মসূচি পালন করেছে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল। সংগঠনটি বুধবার (১ জানুয়ারি) বিকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করে।

তবে সংগঠনের নাম ছাত্রদল হলেও মঞ্চে উপস্থিত নেতাদের নেই কারো ছাত্রত্ব! এ নিয়ে হাসিটাট্টাও করেছেন খোদ দলের অনেক নেতাকর্মী। তারা বলছেন, এটা ছাত্রদের কমিটি নয়, আঙ্কেলদের কমিটি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চাকসু ভিপি নাজিম উদ্দীন, নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আর ইউ চৌধুরী শাহীন ও আবদুল মান্নান ও সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী মো. সিরাজ উল্লাহ। তিনি একইসঙ্গে নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদকও। তাঁর কোনো ছাত্রত্ব নেই।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। তাঁর বয়সও চল্লিশ ছুঁই ছুঁই। তাঁরও কোনো ছাত্রত্ব নেই। তবে তিনি ছাত্রদল ছাড়া অন্য কোনো পদে নেই।

আরেক সহসভাপতি জিয়াউর রহমান জিয়া বর্তমানে স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। এছাড়া প্রতিষ্ঠাবাষিকীতে  ছাত্রদল নেতা হিসেবে যারাই  মঞ্চে ছিলেন তাঁদের কেউ দায়িত্ব পালন করছেন নগর বিএনপিতে, আবার কেউ যুবদল কিংবা সেচ্ছাসেবক দলে।

১৯৭৯ সালের ১ জানুয়ারি গঠিত হয়েছিল বিএনপির ছাত্রসংগঠন ছাত্রদল। সংগঠনের খসড়া গঠনতন্ত্রের ৬-এর ১-এর (খ) ধারায় বলা হয়েছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীরাই কেবল জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সদস্য হতে পারবেন। কিন্তু বাস্তব চিত্র হলো, নগর ছাত্রদলের কমিটিতে কোনো নেতারই নেই ছাত্রত্ব।

বিষয়টি স্বীকার করেন, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী সিরাজ উল্লাহ। তিনি জয়নিউজকে বলেন, ছাত্রদলের কমিটি অনেক আগে মেয়াদোর্ত্তীণ হয়েছে। তরুণ মেধাবী ছাত্রদের দিয়ে শিগগির কমিটি গঠন করা হবে।

নগর ছাত্রদলের সহসভাপতি মো. জসিম উদ্দিন জয়নিউজকে বলেন, ২০১৩ সালের ২১ জুলাই রাতে নগর ছাত্রদলের ১১ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কমিটির মেয়াদ দুই বছর। এর মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কমিটির পূর্ণ মেয়াদ শেষ হলেও কমিটিতে এখনো আমিসহ ১১ জন। এর মধ্যে যুগ্ম সম্পাদক জালাল উদ্দীন সোহেল সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। আমি নগর ছাত্রদলের সহসভাপতি ছাড়া অন্য কোনো পদে নেই।

তিনি জানান, নগর ছাত্রদলের অন্য ৯ জন বিএনপি, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের পদে আছেন। নগর ছাত্রদল সভাপতি গাজী সিরাজ উল্লাহ নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক, সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু নগর বিএনপির সদস্য, সহসভাপতি জিয়া স্বেচ্ছাসেবক দলের সংগঠনিক সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক রাশেদ খান স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি, সহসভাপতি ফজলুল হক সুমন নগর যুবদলের সহসভাপতি, যুগ্ম সম্পাদক মোশাররফ হোসেন যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক এবং আরেক যুগ্ম সম্পাদক আলী মোরতুজা খান স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন।

সাড়ে ছয় বছরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরুই করতে পারেননি স্বীকার করে তিনি বলেন, সভাপতি গাজী সিরাজ ও সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলুকে ১৫১ সদস্যের কমিটি জমা দিয়েছিলাম। কিন্তু তাদের দু’জনের  কোন্দলের কারণে কমিটি করতে পারিনি। যে কারণে তরুণ নেতৃত্ব গড়ে উঠেনি। তবে চেষ্টা করছি নতুন নেতৃত্বের হাতে দলকে তুলে দেওয়ার।

জয়নিউজ/পিডি
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...