বছরের প্রথম দিনে শিশু হয়ে গিয়েছিলেন মেয়রও

0

বছরের প্রথম দিনটা সবার কাছেই ‘স্পেশাল’। সবারই পরিকল্পনায় থাকে এ দিনটি অন্য রকমভাবে কাটানোর। যাতে সুন্দর এ দিনের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা যায় সারা বছর।

তবে যারা জনপ্রতিনিধি তারা চাইলেই পরিকল্পনা করে সব করতে পারেন না। কারণ তারা যে বন্দী নিয়মের শৃঙ্খলে।

সব জনপ্রতিনিধি না পারলেও অন্তত একজন জনপ্রতিনিধি বছরের প্রথম দিনটিকে ‘স্পেশাল’ করে নিয়েছেন। কোমলমতি শিশুদের সঙ্গে প্রাণোচ্ছ্বল দিন কাটানোর এমন সৌভাগ্য হয়েছে নগরপিতা আ জ ম নাছির উদ্দীনের।

শীতের সকালে ইংরেজি বর্ষের প্রথম দিনটিতে মেয়র ছিলেন অংকুর সোসাইটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। অনেকটা সময় নিয়ে তিনি হাস্যোজ্জ্বল শিশুদের সঙ্গ উপভোগ করেন। এসময় মেয়রকে শিশুদের সঙ্গে খেলায় মেতে উঠতেও দেখা যায়!

বুধবার (১ জানুয়ারি) নগরের অংকুর সোসাইটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের হাতে বই তুলে দেওয়া হয়। আনুষ্ঠানিকভাবে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এরপর তিনি শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেন নতুন বই।

নতুন বই পেয়ে খুশিতে উদ্বেলিত শিশুদের সঙ্গে দারুণ কিছু মুহূর্ত কাটান নগরপিতা। এ সময় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একই ফ্রেমে বন্দী হন মেয়র।

পরে আনুষ্ঠানিক বক্তব্যে মেয়র বলেন, দেশের ধারক-বাহক আগামী প্রজন্মের সন্তানদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য সরকার বছরের প্রথম দিনে বই বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে।

স্বাধীনতার পর বহুক্ষেত্রে সাফল্য অর্জিত হয়েছে মন্তব্য করে মেয়র বলেন, এই অর্জনকে ধরে রাখতে পারলে দেশ স্বনির্ভর হবে। শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে তিনি শিক্ষকদের পাশাপাশি অভিভাবকদেরও সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক লিলি বড়ুয়া, সহকারী প্রধান দিপ্তী সেনগুপ্ত, স্কুল পরিচালনা পর্ষদ সদস্যসহ শিক্ষকরা।

জয়নিউজ
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...