আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদসহ ৯৬ জলদস্যুর আত্মসমর্পণ

0

অনেক জল্পনা-কল্পনা শেষে মহেশখালীতে ১২টি বাহিনীর ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রকারিগর আত্মসমর্পণ করেছেন। একই সঙ্গে আত্মসমর্পণকারীরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে ১৫৫টি দৈশীয় তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র ও ২৭৩ রাউন্ড গোলাবারুদ জমা দিয়েছেন।

শনিবার (২৩ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান শুরু হয়।

প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামাল বেলা ১১টার দিকে অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছেন। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মাসুদ হোসেইন জয়নিউজকে বলেন, আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে মহেশখালীর কালারমার ছড়ার আলোচিত জিয়া বাহিনীর প্রধান জিয়াউর রহমান জিয়াসহ তার বাহিনীর অন্তত ১৫ জন। চেয়ারম্যান তারেক শরীফের অনুসারী হিসেবে পরিচিত কালা জাহাঙ্গীর বাহিনীর প্রধান জাহাঙ্গীর আলমসহ প্রায় ১৫ জন, মহেশখালীর নুনাছড়ির মাহমুদুল্লাহ বাহিনীর প্রধান মোহাম্মদ আলীসহ ১৫ জন, ঝাপুয়ার সিরাজ বাহিনীর প্রধান সিরাজ-উদ-দৌলাহ, নলবিলার মুজিব বাহিনীর প্রধান মজিবুর রহমান প্রকাশ শেখ মুজিব এবং কুতুবদিয়ার লেমশিখালীর কালু বাহিনীর প্রধান কালু প্রকাশ গুরা কালুসহ তার বাহিনীর ১৫-২০ জন জলদস্যু ও অস্ত্র কারিগর রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর র‌্যাবের মাধ্যমে মহেশখালী-কুতুবদিয়ার ৪৩ জলদস্যু আত্মসমর্পণের পর ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় অনেক শীর্ষ দস্যু ও অস্ত্র কারিগর। যার কারণে বিভিন্ন পাহাড় ও সাগর উপকূলে অভিযান বৃদ্ধি করে পুলিশ। অভিযানের মুখে আবারও আত্মসমর্পণ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে মহেশখালী, কুতুবদিয়া, চকরিয়া ও পেকুয়ার দস্যু ও অস্ত্র কারিগররা।

আত্মসমর্পণে আগ্রহী অনেক দস্যু ও অস্ত্র কারিগর জানিয়েছে, অর্থের লোভে এ অন্ধকার জগতে জড়িয়ে পড়েন। আবার কেউ প্রভাবশালীদের ক্যাডার হিসেবে ব্যবহার হয়েছেন। অনেকে আবার বংশ পরম্পরায় আধিপত্য রক্ষায় এ কলংকিত জগত বেছে নিয়েছিলেন। এ জগতে পা বাড়িয়ে অনেক পথ হেঁটেছেন। একাধিক মামলা মাথায় নিয়ে ফিরতে পারেনি স্বাভাবিক জীবনে।

পুলিশ সুপার মাসুদ হোসেন আরও জানান, আত্মসমর্পণকারী দস্যুরা দীর্ঘদিন জেলেদের জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায়, মাছ লুট, ঘের ডাকাতি, বংশ পরস্পরের বিরোধ নিয়ে খুনোখুনি ছিল নিত্ত নৈমিত্তিক ঘটনা। এতে স্থানীয়রা থাকত আতঙ্কে।

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...