বন্দরের বহির্নোঙরে পণ্য খালাসে লাইসেন্স পেল ২৩ প্রতিষ্ঠান

0

চট্টগ্রাম বন্দরের ‘শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর’ হিসেবে ২৩টি প্রতিষ্ঠানকে নতুন করে লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। বন্দরের বোর্ড সভায় বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) এসব প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

বহির্নোঙরে বড় জাহাজ থেকে পণ্য খালাসের কাজ করে থাকে শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটররা। তবে যারা লাইসেন্স পেয়েছেন তাদের তালিকা প্রকাশ করেনি বন্দর কর্তৃপক্ষ।

বন্দর কতৃপক্ষ জানায়, সবশেষ ১৯৮২ সালে শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটরের লাইসেন্স দেওয়া হয়। এই দীর্ঘ সময়ে পণ্য আমদানি ছয় থেকে সাত গুণ বেড়েছে।

পণ্য আমদানি বাড়ায় এবং প্রতিযোগিতা বাড়াতে করণীয় নির্ধারণ করতে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে নতুন করে লাইসেন্স দেওয়া হয়।

সংগঠনের চেয়ারম্যান এ কে এম শামসুজ্জামান রাসেল সম্প্রতি গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জানান, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ কুতুবদিয়া বহির্নোঙর ও অন্যান্য বিশেষায়িত জেটিতে আসা দেশি-বিদেশি জাহাজের পণ্য হ্যান্ডলিংয়ের জন্য রেগুলেশনস ফর ওয়ার্কিং অব চিটাগং পোর্ট (কার্গো অ্যান্ড কন্টেনার) ২০০১ এর প্রবিধানমালা অনুসরণ না করে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে ও দরপত্র ব্যতীত নতুন শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর তালিকাভুক্ত করতে চায়।

যেখানে চট্টগ্রাম বন্দরের কর্মকাণ্ডে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ ও দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও অনেক প্রতিষ্ঠান শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর হিসেবে তালিকাভুক্ত হতে ব্যর্থ হয়েছে।

সেখানে কুতুবদিয়া, বহির্নোঙর ও অন্যান্য বিশেষায়িত জেটিতে কাজের জন্য দরপত্র ব্যতীত শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর তালিকাভুক্তি ও নিয়োগ করা অত্যন্ত অযৌক্তিক ও বেআইনি।

এ ব্যাপারে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশও রয়েছে বলে দাবি করেন তারা। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে নিয়ে গেলেও বৃহস্পতিবার তারা তা রিসিভ করেননি।

চট্টগ্রাম বন্দরের কর্মকর্তারা জানান, ২৩টি প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে তারা এখনই পণ্য খালাস করতে পারবে না। পণ্য খালাসের জন্য তাদের আগে তালিকাভুক্ত হতে হবে। তালিকাভুক্ত হওয়ার পরই পণ্য খালাস কাজের সুযোগ পাবে তারা।

চট্টগ্রাম বন্দর সচিব ওমর ফারুক জানান, লাইসেন্স পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বহির্নোঙরে পণ্য খালাসের জন্য তালিকাভুক্ত হতে পারবে। প্রতি পাঁচ বছর পর বহির্নোঙরে পণ্য খালাসের জন্য প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্ত করা হয়। তালিকাভুক্ত হওয়ার পরই পণ্য খালাসকাজের সুযোগ পাবে তারা।

বহির্নোঙরে বড় জাহাজ থেকে বছরে সাড়ে ছয় কোটি টন পণ্য খালাস করা হয়। বর্তমানে ৩২টি প্রতিষ্ঠান বহির্নোঙরে পণ্য খালাসে নিয়োজিত রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠান নিজেদের আমদানি পণ্য খালাস করে। বাকি ২৭টি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন আমদানিকারকের পণ্য খালাসে নিয়োজিত রয়েছে।

শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটররা জানান, রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালীরা নতুন লাইসেন্স পেয়েছেন। একইসাথে বর্তমানে শিপ হ্যান্ডলিং অপারেটর হিসেবে কর্মরত এবং শিপিং এজেন্টরাও নতুন লাইসেন্স পেয়েছেন।

জেএন/পিআর

KSRM
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...
×KSRM