হেলস-বাটলারের ঝড়ে ফাইনালে পাকিস্তানের সঙ্গী ইংল্যান্ড

0

প্রস্তুত ছিল মঞ্চ, অপেক্ষায় ছিল পাকিস্তানও, তবে ভারত আশাহত করল সবাইকে। বহুল প্রতীক্ষিত ভারত-পাকিস্তান ফাইনাল দেখা হচ্ছে না এবারও। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ভারতকে দাঁড়াতেই দেয়নি জস বাটলারের ইংল্যান্ড। দাপুটে এক জয়ে ইংল্যান্ড তৃতীয়বারের মতো উঠে গেছে বিশ্বকাপের ফাইনালে। সুপার সানডেতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তুলতে তাই লড়বে বর্তমান ওয়ানডে চ্যাম্পিয়নরা।

এই ম্যাচের আগে অ্যাডিলেড ওভালে পুরুষদের আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হয়েছে ১১টি, প্রতিবারই জিতেছে টস হারা দল। এই অদ্ভুত সমীকরণ মাথায় নিয়ে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন জস বাটলার। অন্যান্য ভেন্যুর চেয়ে অস্ট্রেলিয়ার এই মাঠ একটু ছোট, তাই বড় স্কোরই প্রত্যাশা করে থাকে সবাই।

তবে টস হারা অধিনায়ক রোহিত শর্মাই সেই প্রত্যাশার পারদে ঢেলে দেন জল। ২৮ বল ক্রিজে থেকে তিনি রান করেছেন মোটে ২৭। আরেক ওপেনার লোকেশ রাহুল তো দুই অঙ্কেই পৌঁছাতে পারেননি, ৫ বলে করেছেন মাত্র ৫ রান। টপ অর্ডার ব্যর্থ হলে ত্রাতা হন যিনি, সেই বিরাট কোহলি একপ্রান্ত আগলে রাখলেও সূর্যকুমার ১০ বলে ১৪ রান করে সাজঘরের পথ ধরলে ভারত ভীষণ চাপে পড়ে যায়। একপর্যায়ে রান রেট বাড়ানোও দুঃসাধ্য হয়ে ওঠে কোহলিদের জন্য। তখনই সংশয় জেগেছিল, ফাইনালে বোধহয় পাকিস্তানের সাথে খেলা হচ্ছে না ভারতের।

হার্দিক পান্ডিয়া অবশ্য ব্যাটিং তাণ্ডবে ম্যাচ জমিয়ে তোলার আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন। তার সমর্থন কাজে লাগিয়ে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তুলে নেন আসরের চতুর্থ অর্ধশতক। ৪০ বলে ৫০ রানের ইনিংসটি অবশ্য দলের জন্য যথেষ্ট ছিল না, লড়াকু পুঁজি এনে দিয়েছেন মূলত হার্দিক। চারটি চার ও পাঁচটি ছক্কায় মাত্র ৩৩ বলে ৬৩ রান করেছিলেন বলেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৮ রানের পুঁজি পায় ভারত।

তবে এই পুঁজি যে জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল না তা স্পষ্ট হয়ে যায় ইংল্যান্ডের ইনিংসের শুরুতেই। অ্যালেক্স হেলসকে নিয়ে ক্রিজে নেমে জস বাটলার তাণ্ডব শুরু করেন। ভারতীয় বোলারদের কচুকাটা করে ইংল্যান্ড শুরুতে রান তুলছিল ওভারপ্রতি ১০ হারে। এতে ভারতের ফাইনালে ওঠার আশা ফিকে হয়ে যায়, ফিকে হয়ে যায় ভারত-পাকিস্তান ফাইনালের স্বপ্ন।

সময়ের সাথে সাথে বাটলার আর হেলস আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। শেষপর্যন্ত ১০ উইকেটের জয় পায় ইংল্যান্ড, তাও ৪ ওভার হাতে রেখে! বাটলার ৯টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৪৯ বলে ৮০ এবং হেলস ৪৭ বলে ৪টি চার ও ৭টি ছক্কায় ৪৭ বলে ৮৬ রান করেন।

জেএন/এমআর

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...