ভয়ংকর যৌন রোগের প্রাদুর্ভাব: পর্ন-তারকাদের কর্মবিরতি

0

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইউরোপে ভয়ংকর যৌন রোগ সিফিলিসের প্রাদুর্ভাবের খবরে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের মধ্যে যুক্তরাজ্যের অনেক পর্ন-তারকা তাদের চলচ্চিত্রের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। ইন্ডিপেনডেন্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রাপ্তবয়স্ক চলচ্চিত্র অভিনেতারা যুক্তরাজ্যে একটি ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন। যাতে করে তারা নিজেদের যৌন রোগ থেকে মুক্ত রাখতে পারেন।

সিফিলিস যৌন সম্পর্কের মাধ্যমে ছড়ায়। এর জীবানু ত্বকে ক্ষত এবং ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে। এর রোগটির ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে নিরাময় করা যায়।

তবে যদি ঠিক সময়ে এ রোগের চিকিৎসা না করা হয়। তবে সিফিলিসের কারণে দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর ফলে মস্তিষ্কের কার্যকারিতা নষ্ট হয়। এছাড়া বিভিন্ন গুরুতর সমস্যা সৃষ্টি হয়।

‘পিএএসএস’ নামে এক সংস্থা মার্কিন প্রাপ্তবয়স্ক চলচ্চিত্রের অভিনেতাদের (পর্ন-তারকা) জন্য যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রশংসাপত্রের একটি ডাটাবেস চালায়। তাদের তথ্যানুসারে, ইউরোপের অনেক পর্ণ-তারকা সিফিলিসে আক্রান্ত। এ সংস্থাটি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের পর্ন-তারকাদের মধ্যেও এ ভয়ংকর যৌন রোগটি ছড়িয়ে পড়তে পারে। এ বিষয়ে তাদের সতর্কও করা হয়েছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যম জানিয়েছে, সিফিলিসের মতো রোগ থেকে নিজেদের রক্ষা করতে ইতোমধ্যেই নিজস্ব ইউনিয়ন গঠনের দাবি করেছেন পর্ন-তারকারা। বিপুল আর্থিক ক্ষতি হলেও ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন তারা। তাদের সমর্থন জানিয়েছেন ছবির প্রযোজকেরাও।

এ বিষয়ে সাবেক পর্ন-তারকা লিয়ান ইয়াং বলেছেন, পেশাদার পর্ন অভিনেতাদের সঙ্গে তিনি গত কয়েক দিনে কথা বলেছেন। তারা সিফিলিস সংক্রমণের ভয়ে পর্ন ছবিতে কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, এমনকি সম্প্রতি যে সকল পর্ন ছবিতে শুটিং করার কথা ছিলো তাও বন্ধ রেখেছেন তারা।

লিয়ান ইয়াং আরও বলেন, ‘খ্যাতিমান পর্ন-তারকারাও আতঙ্কিত। কাজ বন্ধ রাখায় তারা প্রচুর অর্থ হারাচ্ছে। পর্ন নির্মাতা ও প্রাপ্তবয়স্ক চলচ্চিত্রের অভিনেতারা (পর্ন-অভিনেতা) মূলত সমগ্র ইউরোপ ও আমেরিকা মহাদেশে কাজ করেন। এ কারণে এ ভয়ংকর যৌন রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে।

জেএন/এফও/এও

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...