ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করল “আমরাই কিংবদন্তী ফাউন্ডেশন”

0

“আমরাই কিংবদন্তী ফাউন্ডেশন” এস এস সি ২০০০ ও এইচ এস সি ২০০২ সালের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের দ্বারা পরিচালিত একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান, যা মানব কল্যাণে কাজ করার প্রত্যয়ে এগিয়ে চলেছে।

চলতি বছরে এডিস মশার প্রভাবে দেশজুড়ে ডেঙ্গু এর বিস্তার ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এমতাবস্থায় “ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতন হই, সচেতন করি” এই স্লোগানে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে “আমরাই কিংবদন্তী ফাউন্ডেশন” এর পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়েছে। এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে আজ (৩০ সেপ্টেম্বর) ঢাকার তেজগাঁওস্থ ২৫ নাম্বার ওয়ার্ডের নাখালপাড়া, লুকাস মোড় হতে শুরু করে পশ্চিম নাখালপাড়া, পূর্ব নাখালপাড়া, শাহীনবাগ, হাজী মরণ আলী রোড হয়ে নাবিস্কো মোড় পর্যন্ত বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

এ সময় জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে নিন্মলিখিত উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়ঃ

১। জমে থাকা/ আবদ্ধ পাত্রে থাকা (মশার প্রজনন হতে পারে) পানি পরিস্কার কার্যক্রম ও জনসচেতনতা তৈরি করা।
২। আবাসস্থলের আশেপাশের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতকরণ ও উদ্বুদ্ধকরণ।
৩। জনসচেতনতা মূলক লিফলেট ও স্টিকার বিতরণ।
৪। ফগার/স্প্রে মেশিন এর ব্যবহারসহ ও বিবিধ কার্যক্রম।

এই আয়োজনে আমরাই কিংবদন্তী ফাউন্ডেশন এর অর্ধশত স্বেচ্ছাসেবী ছাড়াও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন, ২৫ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনাব আবদুল্লাহ আল মনজুর উপস্থিত থেকে সচেতনতা কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ করেন। অংশ নেন এলাকার শতাধিক সচেতন মানুষ।

উল্লেখ্য যে “আমরাই কিংবদন্তী ফাউন্ডেশন” ২০১৯ সালের ৫ সেপ্টেম্বর যৌথ মূলধনী কোম্পানী ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তর হতে নিবন্ধিত হয়। এর আগে ফেসবুক ভিত্তিক গ্রুপ “এস এস সি ২০০০ ও এইচ এস সি ২০০২ (আমরাই কিংবদন্তী)” ২০১৭ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে যাত্রা শুরু করে, যার বর্তমানে সদস্য সংখ্যা প্রায় ৪৭ হাজার।

এই গ্রুপটি এর আগেও সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বিভিন্ন সামাজিক কাজে নিজেদের নিয়োজিত রেখেছে; এরমধ্যে অন্যতম হচ্ছে কোভিড-১৯ কালীন ফ্রি অক্সিজেন ব্যাংক কার্যক্রম, দেশ জুড়ে পরিচ্ছন্নতা ও জনসচেতনতা, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের সহায়তা কার্যক্রম, ফ্রি হেলথ ক্যাম্প, অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহ ও ধারাবাহিক খাবার বিতরণ, বৃদ্ধাশ্রমে চিকিৎসা ও খাবার সরবরাহ, দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত সদস্যদের আর্থিক সহায়তা এবং রক্তদান কর্মসূচীসহ বিবিধ কার্যক্রম। এছাড়াও রয়েছে স্বাবলম্বীকরণ এবং ইচ্ছাপূরণের মত স্থায়ী উদ্যোগ যার মাধ্যমে ইতিমধ্যে প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ এর কর্মসংস্থান হয়েছে।

ধারাবাহিক ভাবে গ্রুপের পিছিয়ে পড়া সদস্যসহ দেশের প্রতিটি অঞ্চলের অসহায় মানুষদের পাশে চিকিৎসা সেবা সহ সকল মৌলিক সেবা পৌঁছে দিতে পরিকল্পনা করছে এই গ্রুপের সদস্যরা।

জেএন/এও

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...