সেপ্টেম্বর পর্যন্ত লোডশেডিং সহনীয় হতে পারেঃ ড. তৌফিক

0

বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হলে বিদ্যুতের লোডশেডিং আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সহনীয় পর্যায়ে আসতে পারে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম।

আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সারা দেশে বিদ্যুৎ ও গ্যাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘লোডশেডিং স্বাভাবিক হতে আরও আড়াই মাস সময় লাগবে। সেপ্টেম্বর নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পারে। ওই সময় বেশ কয়েকটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হবে। সেখান থেকে ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট এবং পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিট থেকে ৭০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। তখন লোডশেডিং কমে আসবে।’ তবে কোথায় কত ঘণ্টা লোডশেডিং করা হবে, সেটি আগাম জানানোর যে দাবি উঠেছে, তা বাস্তবায়ন কঠিন বলে তিনি জানান।

ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে বাজার-শপিংমল-মসজিদ-অফিস-আদালতে এসির ব্যবহার কমাতে হবে। এসির তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রীর নিচে রাখা যাবে না। চলমান গ্যাস ও বিদ্যুৎসংকট কাটিয়ে উঠতে কমানো হতে পারে সরকারি অফিস-আদালতের সময়। দেশে করোনা আবার বাড়ছে, করোনা মহামারির সময়ের মতো আবার চালু হতে পারে হোম অফিস। সারা দেশে বন্ধ করা হবে আলোকসজ্জা। তাহলে আমাদের অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে।’

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি সাশ্রয়ে আজকের বৈঠকে বেশ কিছু পরামর্শ উঠে এসেছে। এসব পরামর্শ আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরব। এর মধ্যে রয়েছে সরকারি অফিসের সময় সকাল নয়টা থেকে বেলা তিনটা পর্যন্ত করা, বিয়ের অনুষ্ঠান সন্ধ্যা সাতটার মধ্যে শেষ করা। শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের (এসি) তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার ওপরে ওপরে রাখা। আলোকসজ্জা করা যাবে না। রাত আটটার মধ্যে শপিং মল বন্ধ করা। ঘরে বসে কাজ করা যায় কি না, সে বিষয়টিও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। মসজিদ–মন্দিরে বিদ্যুৎ ও এসি ব্যবহার কমিয়ে আনা। এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারলে বিদ্যুতের চাহিদা ৫০০ মেগাওয়াট কমে আসবে। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয় হবে। লোডশেডিং হবে না।’

তিনি বলেন, সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৪ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দৈনন্দিন প্রয়োজন হবে৷ বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাই সাশ্রয়ী হলে এই চাহিদা ১২ হাজার ৫০০ মেগাওয়াটে নামিয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জ্বালানী উপদেষ্টা বলেন, স্থানীয়ভাবে গ্যাস উৎপাদন বাড়ানো হচ্ছে। বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে যখন ক্ষমতায় আসে, তখন গ্যাসের দৈনিক উৎপাদন ছিল ১ হাজার ৮০০ এমএমসি। সেটি ১ হাজার ৬৪৪ এমএমসি বেড়েছে। গ্যাসের উৎপাদন বাড়াতে আরও নতুন কার্যক্রম নেওয়া হচ্ছে। পেট্রোবাংলা গ্যাসের উৎপাদন বাড়াতে কাজ করছে।

তিনি বলেন, জাপানের মতো দেশে লোডশেডিং হচ্ছে। যুক্তরাজ্য, জার্মানি অস্ট্রেলিয়াসহ পৃথিবীর সব উন্নত দেশে জ্বালানি–সংকটের অভিঘাত পড়েছে। তাদের সঙ্গে তুলনা করলে বাংলাদেশ বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে। তবু আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, চলমান এ পরিস্থিতি একটি যুদ্ধের মতো। সবাই মিলে যদি চেষ্টা করি তাহলে পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পারব। এজন্য প্রধানমন্ত্রী সবাইকে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হতে বলেছেন।

ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে গ্যাস–সংযোগ ব্যবহার করা হচ্ছে। আবার অনেকের বকেয়া বিল পড়ে আছে। অবৈধ গ্যাস–সংযোগের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে যাচ্ছে সরকার। যাদের বিল বকেয়া রয়েছে, সে টাকা আদায়ে কঠোর হবে সরকার।

জেএন/এমআর

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...