চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর বহরে যুক্ত হলো অত্যাধুনিক ২ টাগবোট

0

প্রায় ১৪৫ কোটি ২২ লাখ ৫৬ হাজার টাকায় সংগ্রহ করা দুইটি টাগবোট চট্টগ্রাম বন্দরের সার্ভিস জেটিতে এসে পৌছেছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) বিকেল ৩টায় দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের প্রায় ৯২ শতাংশ নিয়ন্ত্রক চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের বহরে যুক্ত হয় ‘কাণ্ডারী-৩ ও ৪’ নামের এ দুটি অত্যাধুনিক টাগবোট।

তথ্যটি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব মো. ওমর ফারুক বলেন, গত ১৪ মার্চ ১৪৫ কোটি ২২ লাখ ৫৬ হাজার টাকায় দুটি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন টাগবোট কেনার জন্য চীনা একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করেছিল বন্দর।

‘কাণ্ডারী-৩’ ও ‘কাণ্ডারী-৪’ নামের টাগবোট দুইটি বুধবার বাংলাদেশের জলসীমায় পৌঁছে। আজ বৃহস্পতিবার ৩টার দিকে টাগবোট দুটি বন্দরের জেটিতে এসে পৌছায়।

তিনি বলেন, টাগবোট দুটি চালু হলে চট্টগ্রাম বন্দরে আসা জাহাজের নিরাপত্তা বৃদ্ধি, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় জাহাজগুলোকে সহায়তা প্রদান করা, কর্ণফুলী চ্যানেলের নৌ- সংরক্ষণে সহায়তা প্রদান করাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে। সে সাথে বন্দরে কার্গো হ্যান্ডলিং ক্ষমতা ও রাজস্ব আদায়ের পরিমাণও বাড়বে।

চট্টগ্রাম বন্দর সূত্রে জানা গেছে, চীনা প্রতিষ্ঠান চিঅয় লি শিপইয়ার্ড লিমিটেডের সাথে টাগবোটের চুক্তির কাজ সম্পন্ন করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দরের ১ নম্বর বার্থের নতুন তৈরি করা সার্ভিস জেটিতে টাগবোট দুইটি রাখা হবে।

৫০০০ বিএইচপি/৭০ টন বোলার্ড পুলের উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন নতুন টাগবোট দুটি ১২০ মিটার দূর থেকেও জাহাজ ও জেটির আগুন নেভাতে সক্ষম এবং নদীতে তৈল দূষণ হলে বিশেষ ধরনের রাসায়নিক পদার্থ ছিটিয়ে দূষণ মোকাবেলা করতে পারবে।

টাগ দুটিতে আধুনিক রাডার, জিপিএস, ইকো সাউন্ডার, অটো পাইলট, ইউএমএস, বেতার ও স্যাটেলাইট যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিকূল আবহাওয়াতেও টাগবোটগুলো চলতে সক্ষম।

চট্টগ্রাম বন্দরে আসা জাহাজের নিরাপত্তা বৃদ্ধি, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় জাহাজগুলোকে সহায়তা প্রদান করা, কর্ণফুলী চ্যানেলের নৌ- সংরক্ষণে সহায়তা প্রদান করাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে।

নতুন টাগ দুইটি সঠিকভাবে পরিচলনা করতে বন্দরের নৌ বিভাগের ২০ জন মাস্টার, লস্কর, ইডিএল, ইডি নিয়ে ডেক সাইড ও ইঞ্জিন সাইডের টিম তৈরি করা হয়েছে। তাদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও শেষ হয়েছে।

জেএন/টিটি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...