পদ্মা সেতু চালু হলে অবসান ঘটবে ফেরি যুগের

অচল হবে ১৪ ফেরি : বাঁচবে মানুষের কর্মঘণ্টা

0

পদ্মা সেতু চালুর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ যুগ যুগ ধরে এই পথে চলাচলরত ফেরি যুগের অবসান ঘটতে চলেছে। পাশাপাশি ৩০ বছর দক্ষিণাঞ্চলবাসীর সীমাহীন দুর্ভোগ থেকে মুক্তি মিলবে।

তাছাড়া এ দুপারের যাতায়াতরত বাসিন্দাদের কর্মঘন্টা বাজবে এবং দক্ষিণাঞ্চলের মেগা প্রকল্পগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখার সুযোগ তৈরি হবে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ অফিস সূত্রে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে কুয়াকাটা থেকে ঢাকা পর্যন্ত মোট ১৪টি নদীর ওপর ফেরি ছিল। এগুলোর বেশির ভাগই ছিল লক্কড়ঝক্কড় মার্কা। তার মধ্যে আবার বেশ কয়েকটি ছিল কাঠের ফেরি।

একের পর এক ফেরি পার হয়ে ঢাকা থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত পৌঁছতে ক্ষেত্রবিশেষে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় লেগে যেত। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাটে ফেরির জন্য অপেক্ষায় থাকতে হতো।

আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের খবরে ব্যাপকভাবে উল্লসিত দক্ষিণাঞ্চলের ভুক্তভোগী হাজারো মানুষ। তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেসব দিনের দুর্দশার স্মৃতি তুলে ধরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার বাসিন্দা আহসান পাভেল বলেন, ‘গত ৩০ বছর এই রুটে ১৪টি ফেরি পাড়ি দিয়ে ঢাকায় পৌঁছতে হয়েছে। অনেক কষ্ট হতো ফেরি পারাপারে।

অন্যান্য ঘাটে আগেই সেতু হয়ে গেছে, তবে বড় চ্যালেঞ্জটা ছিল পদ্মা নদী পাড়ি দেয়া। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে সেই সীমাহীন ভোগান্তির অবসান হচ্ছে।’

নুরুজ্জামান মামুন নামের একজন সাংবাদিক ফেরিঘাটের দুঃসহ যন্ত্রণার কথা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুলে ধরেছেন। ২০২০ সালের ৭ ডিসেম্বর রাতে তার বাবার লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স মাওয়াঘাটে আটকে ছিল প্রায় এক দিন।

এর আগে ২০১৬ সালে তার নানির জানাজায় অংশ গ্রহণ করতে পারেননি এই ঘাটের জ্যামের কারণে। সেই ঘাটে এবার সেতু হচ্ছে।

তিনি লিখেছেন, ‘পদ্মার বুকে নির্মিত এটি শুধু একটি সেতুই নয়, এটি বাংলাদেশের সক্ষমতার স্মারক। কুখ্যাত মোড়লদের বিশাল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে এক স্বপ্ন জয়ের ইতিহাস। বিশ্ব দরবারে আজ আমরা মাথা উঁচু করে বলতে পারি, আমরাও পারি। অভিনন্দন প্রধানমন্ত্রী।’

শুধু মামুন আর আহসান পাভেলই নন, এ রকম দুঃসহ স্মৃতির উল্লেখ করে দক্ষিণাঞ্চলের হাজারো মানুষ প্রায় প্রতিদিনই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পদ্মা সেতু নিয়ে আনন্দ-উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন।

সওজ সূত্রে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে চারটিসহ গত ১৯ বছরে ১০টি সেতু নির্মিত হয়েছে এই পথে। ২০১৫ সালের ২০ আগস্ট কলাপাড়া উপজেলায় সবশেষ শিববাড়িয়া নদীর ওপর ‘শেখ রাসেল সেতু’ উদ্বোধন করেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরের বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি একই উপজেলার সোনাতলা নদীর ওপর ‘শেখ জামাল সেতু’ এবং আন্ধারমানিক নদীর ওপর ‘শেখ কামাল সেতু’ একসঙ্গে উদ্বোধন করেন তিনি।

২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পটুয়াখালীর লাউকাঠি নদীর ওপর ‘পটুয়াখালী সেতু’, ২০২১ সালের ২৪ অক্টোবর পটুয়াখালীর পায়রা (লেবুখালী) নদীর ওপর ‘পায়রা সেতু’, ২০১১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি বরিশালের দপদপিয়া নদীর ওপর ‘আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু’, ২০০৩ সালের ৮ এপ্রিল বরিশালের দোয়ারিকা নদীর ওপর ‘এমএ জলিল সেতু’, ২০০৩ সালের ৩ এপ্রিল শিকারপুর নদীর ওপর ‘ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু’, ২০১৭ সালের ৪ নভেম্বর আড়িয়াল খাঁ নদীর ওপর ‘আড়িয়াল খান সেতু’ উদ্বোধন করা হয়।

এ ছাড়া ধলেশ্বর-১ ও ধলেশ্বর-২, বুড়িগঙ্গা এবং পটুয়াখালীর মৌকরণ সেতু নব্বইয়ের দশকে নির্মিত হয়।

এক হিসাবে দেখা যায়, ২০০৩ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ১৯ বছরে মাওয়া থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ১০টি নদীর ওপর ১০টি নান্দনিক সেতু নির্মিত হয়েছে (পদ্মাসহ)।

আগামী ২৫ তারিখ পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ঢাকা-কুয়াকাটা সড়ক পথে সেই ফেরি যুগের পরিসমাপ্তি ঘটতে চলেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন ‘এখন ফেরি নেই। সব সেতু হয়ে গেছে। কয়েক দিন পরই পদ্মা চালু হবে। কি যে মজা লাগতেছে ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। একদিকে সময় কম লাগবে। ট্রিপও বেশি দিতে পারব। যাত্রীরাও নিরাপদে আসা-যাওয়া করতে পারবে।’

সেতুর কারণে দক্ষিণাঞ্চলের মেগা প্রকল্পগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখা সহজতর হবে বলে মনে করেন পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র ও চেম্বার অফ কমার্সের সাবেক সভাপতি শিল্পপতি মহিউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটাবে এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে। মানুষজন ঢাকা থেকে সকালে রওনা হয়ে কাজ শেষে আবার সন্ধ্যায় ঢাকায় পৌঁছতে পারবে। বড় বড় শিল্পোদ্যোক্তারা এই এলাকায় আসবেন শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ার জন্য।

জেএন/টিটি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...